Header Ads

কমছেই রেমিটেন্স

অবশ্য অর্থমন্ত্রীর আশা, জনশক্তি রপ্তানি বাড়লে এই স্থবিরতা কেটে যাবে।
চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) এক হাজার ২২৪ কোটি ৭৪ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছে, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ২ শতাংশ কম।
জনশক্তি রপ্তানিতে ‘স্থবিরতা’র কারণে রেমিটেন্স প্রবাহে কিছুটা ধীরগতি ছিল বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
২৭ এপ্রিল জাতীয় সংসদে চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসের (জুলাই-ডিসেম্বর) বাজেট বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি সংক্রান্ত যে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছেন তাতে মুহিত বলেন, “বিগত অর্থবছরের মার্চ হতে চলতি অর্থবছরের আগস্ট পর্যন্ত প্রবাস নিয়োগে কিছুটা স্থবিরতা ছিল বিধায় প্রবাস আয় প্রবাহে চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধে কাঙ্ক্ষিত গতিশীলতা আসেনি।
“তবে সম্প্রতি প্রবাস নিয়োগের পরিমাণ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বৃদ্ধি পাচ্ছে। চলতি অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে প্রবাসে নিয়োগ পেয়েছেন ৩ লাখ ১১ হাজার ৬৪২ জন কর্মী। অর্থাৎ এই সময়ে প্রবাস নিয়োগের প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ৪৩ দশমিক ২ শতাংশ।
“তাই আমার বিশ্বাস প্রবাস আয় প্রবাহের বর্তমান স্থবিরতা অচিরেই কেটে যাবে।”
তবে অর্থনীতির গবেষক জায়েদ বখত মনে করেন, মার্কিন মুদ্রা ডলারের বিপরীতে ইউরো, সিঙ্গাপুর ডলার, মালয়েশিয়ান রিংগিতসহ অন্যান্য মুদ্রার দরপতনের কারণে বাংলাদেশে রেমিটেন্স প্রবাহ কমছে।

No comments

Powered by Blogger.